“নাছির ভাই ইক্কে আইয়ূন” মানে এদিকে আসেন

গোলাম ফারুক দুলালঃচট্টগ্রাম ডেস্কঃ-    আগামী সাধারণ নির্বাচনে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করা এবং চট্টগ্রামের সার্বিক উন্নয়ন নিশ্চিতকরণ ও নগরবাসীর অধিকার প্রতিষ্ঠায় আমি দলের সাধারণ সম্পাদক আ.জ.ম নাছির উদ্দীনকে সহযোগিতা করবো। এই প্রশ্নে আমাদের মধ্যে দৃষ্টিভঙ্গিকৃত কোন ভিন্নতা নেই। তবে মহল বিশেষ দলকে অজনপ্রিয় করার জন্য ষড়যন্ত্র করছে। আমি লাঠি হাতে নিয়েছি কাউকে আঘাত করার জন্য নয়, অসত্য ও অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতীকী লড়াইয়ের প্রতীক হিসেবে লড়াইয়ের জন্য উদ্ধুদ্ধ করেছি মাত্র।এমনটি বলছিলেন মহিউদ্দিন চৌধুরী। মাস জুড়ে পরস্পরের প্রতি হুঙ্কার, বাকযুদ্ধ এবং নানা বিতর্ক চলাবস্থায় দুই নেতা যখন একসঙ্গে সমাবেশে ঘোষণা দিলেন সঙ্গত কারণের নগরবাসী এবং প্রশাসনের কর্মকর্তারা যখন চরম উৎকণ্ঠা ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের আজকের সমাবেশ নিয়ে তা কিছুটা নিরসন হল।

সকল আশঙ্কাকে উড়িয়ে দিয়ে এক সঙ্গে হাতে হাত রেখে সমাবেশে পরস্পরের প্রতি শ্রদ্ধাপূর্ণ সহনশীল বক্তব্য রাখেলেন ক্ষমতাসীন দলের দুই শীর্ষ নেতা এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী ও আ জ ম নাছির উদ্দিন। তবে কি কারনে হঠাত দৃশ্যপট বদলে গেল সভায় উপস্থিত অনেক নেতাকর্মী হতবাক হয়ে একে অপরের দিকে তাকাচ্ছিলেন।সোমবার বিকালে নগরীর কেন্দ্রিয় শহীদ মিনারে দলের কর্মসূচিতে এক সঙ্গে ্উপস্থিত হয়ে বিরোধে জড়িয়ে পড়া দুই নেতা এক সঙ্গে বক্তব্য রাখার পর আপাততে দীর্ঘ দিনের মত বিরোধের কিছুটা হ্রাস পাবে বলে মনে করছেন দলের অনেক শান্তিপ্রিয় নেতাকর্মীরা।