চলে গেলেন জনপ্রিয় আবৃত্তিশিল্পী কাজী আরিফ

বরেণ্য আবৃত্তিশিল্পী কাজী আরিফ ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরিফের মৃত্যু হয়।

আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আহকাম উল্লাহ এনটিভি অনলাইনকে বিষয়টি জানিয়েছেন। তিনি জানান, বাংলাদেশ সময় আজ শনিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে কাজী আরিফের লাইফ সাপোর্ট খোলা হয়। এরপর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

এর আগে আবৃত্তিশিল্পী কাজী আরিফকে ‘ক্লিনিক্যালি ডেড’ ঘোষণা করা হয়। এ বিষয়ে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক আবৃত্তিশিল্পী হাসান আরিফ এনটিভি কে বলেছিলেন, ‘কাজী আরিফের মেয়ের পাঠানো একটি মেসেজের মাধ্যমে আমরা তাঁর চলে যাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হয়েছি। তবে লাইফ সাপোর্ট খুলে ফেলার জন্য কিছু আনুষ্ঠানিকতা এখনো রয়েছে।’

নিউইয়র্ক থেকে বাংলাদেশ আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আহ্কাম উল্লাহ্ এনটিভি কে বলেন, বাংলাদেশ সময় সকাল সাড়ে ১০টায় চিকিৎসকরা কাজী আরিফকে ‘ক্লিনিক্যালি ডেড’ ঘোষণা করেন।

কাজী আরিফ ১৯৫২ সালের ৩১ অক্টোবর তৎকালীন বৃহত্তর ফরিদপুরের রাজবাড়ীতে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর শিক্ষা ও বেড়ে ওঠা চট্টগ্রাম শহরে। উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করেছেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) থেকে। পেশায় স্থপতি এই গুণী একাধারে আবৃত্তিশিল্পী, লেখক ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক।

১৯৭১ সালে এক নম্বর সেক্টরে মেজর রফিকুল ইসলামের কমান্ডে সরাসরি মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। বাংলাদেশ আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের প্রতিষ্ঠাকালীন উদ্যোক্তাদের একজন তিনি। সারা দেশ ঘুরে আবৃত্তির প্রশিক্ষণ দিয়েছেন সংগঠনগুলোতে। প্রজ্ঞা লাবণী-কাজী আরিফ বাংলাদেশের প্রথম জনপ্রিয় হওয়া আবৃত্তি জুটি।