ধর্ষণ এখন জাতীয় ক্রীড়ায় পরিণত হয়েছে : এরশাদ

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, ‘ধর্ষণ এখন জাতীয় ক্রীড়ায় পরিণত হয়েছে। আর এটি হয়েছে দেশে বিচারহীনতার কারণে। কারণ, তারা জানে ধর্ষণ করলে বিচার হবে না, শাস্তি হবে না।’

আজ সোমবার বিকেলে রাজশাহী মহানগর জাতীয় পার্টির সম্মেলনে এইচ এম এরশাদ এ কথা বলেন। নগরীর তেরখাদিয়া এলাকায় শহীদ এ এইচ এম কামারুজ্জামান বিভাগীয় স্টেডিয়ামের সামনের সড়কে ওই সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

দেশে এককেন্দ্রিক সরকার ভেঙে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠার আহ্বান জানিয়ে এরশাদ নির্বাচন পদ্ধতির পরিবর্তন চেয়েছেন। তিনি বলেন, যেভাবেই নির্বাচন করুন না কেন, অতীতের প্রতিটি নির্বাচন বিতর্কিত হয়েছে। তাই নির্বাচন পদ্ধতির পরিবর্তন করতে হবে।

এইচ এম এরশাদ বলেন, ‘এককেন্দ্রিক সরকার ভেঙে জনগণের সরকার করতে হবে। নির্বাচন পদ্ধতির পরিবর্তন করতে হবে। যেভাবে নির্বাচন করেন না কেন প্রত্যেকটা নির্বাচন বিতর্কিত।’

দেশের অর্থনৈতিক অবস্থার বর্ণনা দিতে গিয়ে এরশাদ বলেন, ‘সরকারি ব্যাংক খালি। ৭৪ হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার করা হয়েছে।’ তিনি জনগণের টাকা জনগণের হাতে ফিরিয়ে দিতে এবং দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠা করতে জাতীয় পার্টিকে শক্তিশালী করার আহ্বান জানান।

এরশাদ বলেন, ‘সুশাসন প্রতিষ্ঠা করব। আমার সময় কেউ মরে নাই। প্রতিদিন খবরের কাগজ খুললেই দেখি মানুষ গুম হয়েছে। মায়েরা কাঁদছে। মায়েদের বুক খালি হচ্ছে।

চোখের জলে ভাসছে দেশ। কেউ পরোয়া করে না। মায়ের কান্না বৃথা যেতে পারে না।’

নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ থেকে আগামী সংসদ নির্বাচনের প্রস্তুতি গ্রহণের আহ্বান জানিয়ে এরশাদ বলেন, ‘জাতীয় পার্টি এখন রাজনীতিতে বড় ফ্যাক্টর। আগামী নির্বাচনে ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য জাতীয় পার্টি প্রস্তুত। আমরা এখন ৩০০ আসনে প্রার্থী দেওয়ার জন্য চেষ্টা করছি। মানুষের ভালোবাসা আছে, এই ভালোবাসা নিয়ে আগামীতে সরকারও গঠন করবে জাতীয় পার্টি।’

এরশাদ বলেন, ‘অনেক নির্যাতন করা হয়েছে আমাকে। নিঃশেষ করে দেওয়ার চেষ্টা হয়েছে। অনেক ঝড় গেছে। কিন্তু এখনো কর্মীরা আমাকে ছেড়ে যায়নি। আমি বেঁচে আছি। এখন জাতীয় পার্টি ইজ এ বিগ ফ্যাক্টর ইন পলিটিকস।’

সাবেক এই রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘কিছুদিন আগে বিএনপি তাদের ভিশন দিয়েছে। অনেক আগেই আমরা ভিশন দিয়েছি। আমরা বলেছি, প্রাদেশিক সরকার ব্যবস্থা চালু করতে হবে। নির্বাচন পদ্ধতির পরিবর্তন করতে হবে। উপজেলা চেয়ারম্যানদের হাতে ক্ষমতা দিয়ে উপজেলা পরিষদকে কার্যকর করতে হবে।’

রাজশাহী মহানগর জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক শাহাবুদ্দিন বাচ্চুর সভাপতিত্বে সম্মেলনে প্রধান বক্তা ছিলেন পার্টির মহাসচিব এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার। আরো বক্তব্য রাখেন প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী ফিরোজ রশিদ ও এস এম ফয়সাল চিশতী। সম্মেলনে মহানগর জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক প্রতিবেদন পেশ করেন মহানগর জাপার সদস্য সচিব মোস্তাফিজুর রহমান ডালিম।

প্রধান অতিথির বক্তব্য শেষে পার্টির মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার রাজশাহী মহানগর জাতীয় পার্টির নতুন সভাপতি হিসেবে শাহাবুদ্দিন বাচ্চু ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান ডালিমের নাম ঘোষণা করেন। নতুন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পাঠানো নামের ভিত্তিতে পার্টির চেয়ারম্যান পরবর্তীতে পূর্ণাঙ্গ কমিটির অনুমোদন দেবেন বলে ঘোষণা দেন রুহুল আমিন হাওলাদার।