কিছু শরনার্থী ফেরত যাবে প্রক্রিয়ার শুরু হবে- জাতির উদ্দ্যেশে সুচি

সম্প্রতি

জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া এক ভাষণে মিয়ানমারের ডি-ফ্যাক্টো নেত্রী অং সান সু চি বলেছিলেন যে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেবে তার দেশ। আর এবার জাপানের নিকি এশিয়ান রিভিউ পত্রিকাকে গত বুধবার দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘কিছু শরণার্থীকে ফেরত নেয়ার প্রস্তুতি শুরু করেছে সরকার এবং এই প্রক্রিয়া যেকোনো সময় শুরু হতে পারে।

’যদিও রাখাইন রাজ্যে জাতিগত নিধন চালানো সেনাবাহিনীর কর্মকাণ্ড নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে নীরব থাকা, পরবর্তিতে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানে কার্যকরী কোনো ভূমিকা পালন না করায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের ব্যাপক কটূক্তি ও সমালোচনার শিকার হন সু চি। গত ২৫ আগস্ট মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে পুলিশের তল্লাশি চৌকিতে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটে বলে দেশটির পক্ষ থেকে জানানো হয়। এরপর থেকেই রাখাইনে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর অভিযান চলে। রোহিঙ্গাদের ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেওয়া হয়। দমন-পীড়ন চলে তাদের ওপর। সহিংসতা থেকে বাঁচতে মিয়ানমারের সংখ্যালঘু মুসলিম রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী সীমান্ত পার হয়ে বাংলাদেশে ঢোকে। ২৫ আগস্টের পর থেকে এ পর্যন্ত প্রায় সোয়া চার লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে ঢুকেছে। রোহিঙ্গা ইস্যুতে দীর্ঘ সময় নীরব থাকার পর টেলিভিশনে জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেন সু চি। তাতেও তিনি মিথ্যাচার করেন বলে অভিযোগ রয়েছে আন্তর্জাতিক মহলে।