সীতাকুণ্ডের জঙ্গলসলিমপুরের ত্রাস মশিউর গ্রেফতার

সীতাকুণ্ডের জঙ্গলসলিমপুরে অভিযান চালিয়ে মশিউর বাহিনীর প্রধান কাজী মশিউর রহমানকে সহযোগী রফিকসহ গ্রেফতার করেছে র‌্যাব; মশিউরের বিরুদ্ধে ৩০ মামলা রয়েছে বলে তথ্য দিয়েছে এই এলিট ফোর্স।

সোমবার ভোররাত এই অভিযান পরিচালনা করা হয় বলে জানান র‌্যাব-৭ চট্টগ্রামের সিনিয়র সহকারী পরিচালক মিমতানুর রহমান।

তিনি বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মশিউর বাহিনীর প্রধান মশিউরকে ১৬টি অস্ত্র ও বিপুল পরিমাণ গুলি-কার্তুজসহ গ্রেফতার করা হয়েছে। একই অভিযানে গ্রেফতার হয়েছে মশিউরের সহযোগি রফিক।

চট্টগ্রাম মহানগর ছিন্নমূল বস্তিবাসী সমন্বয় সংগ্রাম পরিষদের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন মশিউর। এই সংগঠনের নেতৃত্বে জঙ্গল সলিমপুরে সরকারি খাস জমিতে গড়ে তোলা ঝুঁকিপূর্ণ বসতি এখন পরিণত হয়েছে ছিন্নমূলের ‘দুর্ভেদ্য সাম্রাজ্যে’। প্রশাসনিক কাঠামোতে জঙ্গল সলিমপুরের অবস্থান সীতাকুণ্ড উপজেলার আওতায় হলেও ওই এলাকায় প্রবেশ করতে হয় চট্টগ্রাম নগরীর বায়েজিদ থানার বাংলাবাজার এলাকা দিয়ে। দেশের প্রায় সব জেলার মানুষই এখানে আছে। অধিকাংশ রিকশাচালক, ঠেলাগাড়ি চালক, দিনমজুর, হোটেল বয় ও গার্মেন্টম শ্রমিক।

পাহাড়ে এই অবৈধ বসতির নিয়ন্ত্রণ নিয়ে ২০০৪ সালে একাধিক পক্ষের মধ্যে দ্বন্দ্ব দেখা দেয়। ২০১০ সালে স্থানীয় লাল বাদশা ও আলী আক্কাসের গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটে। ২০১০ সালের ২৩ মে র‌্যাবের সঙ্গে কথিত ‘বন্ধুকযুদ্ধে’ আলী আক্কাস নিহত হন।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযান চলাকালে এবং ছিন্নমূলের আমন্ত্রণ ছাড়া সংবাদকর্মীরা ওই এলাকায় ঢুকতে পারেন না।