দুদুকের দুর্নীতি মামলায় ফেঁসে গেলেন বিএনপির সাবেক এমপি

দুদকের দায়ের করা দুর্নীতি মামলায় বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ও ঝিনাইদহ-১ আসনের সাবেক এমপি এম আব্দুল ওহাবের ৮ বছর সশ্রম কারাদণ্ডাদেশ এবং ৪৫ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ৯ মাসের সশ্রম কারাদণ্ডাদেশ দেয়া হয়েছে। একইসঙ্গে জ্ঞাত আয়বর্হিভূত ৯৩ লাখ ৩৬৯ টাকার অবৈধ সম্পদ বাজেয়াপ্তের রায় দিয়েছে যশোরের স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল আদালত। আদেশে আসামি আব্দুল ওহাবকে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
যশোরের স্পেশাল ট্রাইব্যুনালের বিচারক (জেলা জজ) নিতাই চন্দ্র সাহা আজ সোমবার সকালে এ আদেশ দেন। প্রতিবাদে আগামীকাল মঙ্গলবার আধাবেলা হরতাল ডেকেছে স্থানীয় বিএনপি। মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০০৮ সালে দুদকে এম আব্দুল ওহাব তার সম্পদের বিবরণী জমা দেন। দুদক পর্যালোচনা করে দেখে ৪৫ লাখ ৯৭ হাজার ৮১০ টাকার সম্পাদের তথ্য গোপন ও জ্ঞাত আয়বর্হিভূত ৮৯ লাখ ৯২ হাজার ৬৭৭ টাকার সম্পদের তথ্য উপস্থাপন করেন। আদালত এসব বিষয় পর্যালোচনা শেষে তারা বিরুদ্ধে এ রায় ঘোষণা করেন।
দুর্নীতি দমন কমিশনের স্পেশাল পিপি অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম জানান, বিএনপি  নেতা ও সাবেক সংসদ সদস্য এম আব্দুল ওহাবের বিরুদ্ধে দুদকের দায়ের করা মামলায় চার্জ গঠনের পর যশোর আদালতে সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে বিচারক এই রায় দেন।
এদিকে এ রায়কে অবৈধ দাবি করে ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা উপজেলায় বিএনপি মঙ্গলবার সকাল ৬টা থেকে বেলা বেলা ১২টা পর্যন্ত আধাবেলা হরতাল ডেকেছে। রায় ঘোষণার পর যশোর প্রেসক্লাবে আয়োজিত তাৎক্ষণিক সাংবাদিক সম্মেলনে এ হরতালের ঘোষণা  দেন ঝিনাইদহের শৈলকুপা  উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল হাসান খান দিপু। এসময় তিনি বলেন, আগামী নির্বাচনে সম্ভাব্য প্রার্থীদের অযোগ্য করতেই পরিকল্পিতভাবে এই রায় দেওয়া হচ্ছে। নিম্ন আদালতে তারা ন্যায়বিচার পাননি বলে তিনি মন্তব্য করেন।