৫’শ টাকা ছাড়া মামলা নিতেন না তদন্ত ইনচার্জ

গত বুধবার (১৬ অক্টোবর) রংপুরের পীরগঞ্জে কারাগারে এক আসামির মৃত্যুর ঘটনায় ব্যাপক সংঘর্ষ হয় এলাকাবাসী ও পুলিশের মধ্যে। এতে আন্দোলনকারী সবাইকে মাদক ব্যবসায়ী বলে দাবি করেছেন প্রত্যাহার হওয়া বহু অনিয়মের সাথে জড়িত তদন্ত কেন্দ্র ইনচার্জ আমিনুল ইসলাম। রংপুরের পীরগঞ্জের ভেন্ডাবাড়ি তদন্ত কেন্দ্রে হামলার কারণ অনুসন্ধানে উঠে এসেছে ইনচার্জ আমিনুল ও তার সাঙ্গপাঙ্গদের বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষের পুঞ্জিভূত ক্ষোভ। ঘটনার পর থেকে গ্রেফতার আতঙ্কে ভুগছে ভেন্ডাবাড়ি ও আশপাশের মানুষ। এ অবস্হায় গত বুধবার (১৬ অক্টোবর) হাজতখানায় আসামীর মৃত্যুকে কেন্দ্র করে পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে যারা হামলা করে, তারা সবাই মাদক ব্যবসায়ী বলে দাবি করেছেন আমিনুল।

এলাকাবাসীরা জানান, উনি প্রায় সবাইকেই কারণ ছাড়া আটক করেন। তাকে এতো বড় পাওয়ার কে দিয়েছেন? ভালো লোকদের আটক করে টাকা দাবি করেন। টাকা না দিলেই মাদকসেবী বলে চালান করে দেন। মামলা করতে গেলেও ৫শ টাকা না দিলে আলাপ করেন না। আমিনুলের সঠিক বিচারের সাবি করেছেন আইনজীবী ও মানবাধিকার কর্মীরাও। মানবাধিকার কর্মী অ্যাডভোকেট মুনীর চৌধুরী বলেন, অনেকদিন যাবতই তিনি আইনের নামে সাধারণ মানুষকে বেআইনীভাবে হয়রানী করছেন। টাকা পয়সা হাতিয়ে নিচ্ছেন। এটা তদন্ত করা দরকার। এ ব্যাপারে রংপুরের পুলিশ সুপার বিপ্লব সরকার বলেন, সকল তথ্য সংগ্রহ করে তদন্ত দল প্রতিবেদন আকারে আমার কাছে জমা দেবে। প্রতিবেদন পাওয়ার পর পরবর্তী কার্যক্রমের সিদ্ধান্ত নেয়া হব…