শারীরিক সম্পর্কের চরম মুহূর্তে ‘অন্তঃসত্ত্বা’ স্ত্রীকে হত্যা করলেন স্বামী

শারীরিক সম্পর্ক চলাকালীন চরম মুহূর্তে নিজের স্ত্রী’কেই নৃশংস ভাবে হত্যা করল স্বামী। গলায় রেজার ব্লেড চালিয়ে অভিযুক্ত স্বামী খুন করে তার স্ত্রী’কে। এ ঘটনা ঘটেছে ব্রাজিলের সাও পাওলোতে।

ব্রাজিলের পুলিশ জানিয়েছে, জেরায় ২১ বছরের মার্সেলো আরাউজো নামে অভিযুক্ত স্বামী স্বীকার করেছে হিংসার বশবর্তী হয়েই মিলনের সময় এই কাণ্ড ঘটিয়েছে সে। মার্সেলো পুলিশকে জানিয়েছে, তৃতীয় বার তার স্ত্রীর প্রেগন্যান্ট হওয়ার খবর জানতে পেরেই তাকে খুন করেছে সে।

পুলিশ জানিয়েছে, মার্সেলোর স্ত্রীর নাম ফ্রান্সিন ডোস সান্টোস। ইতিমধ্যেই ওই দম্পতির একটি ছেলে ও একটি মেয়ে রয়েছে। তাই তৃতীয়বার প্রেগনেন্সির খবর শোনাতেই ফ্রান্সিনকে খুন করার সিদ্ধান্ত নেয় মার্সেলো।

জেরায় মার্সেলো দাবি করেছে, সে আর কোনও সন্তান চাইত না। কারণ সে তার স্ত্রী’কে আর কারও সঙ্গেই ভাগ করতে রাজি নয়। তাছাড়া তৃতীয় সন্তান নিলে তাঁর অর্থনৈতিক ভাবেও সে দুর্বল হয়ে পড়ত বলে পুলিশের কাছে দাবি করেছে সে।

ঘটনার পরে অভিযুক্ত মার্সেলোকে সাও পাওলোর তাঁর পৈতৃক বাড়ি থেকে হাতের কব্জি কাটা ও ঘাড়েও আঘাত লাগা অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। পুলিশ জানিয়েছে সে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করছিল।

পুলিশের গোয়েন্দারা জানিয়েছে, গত বছরের ২২ ডিসেম্বর মার্সেলো ক্রিসমাসের ডিনারের প্ল্যানিং করছিল, কিন্তু প্রেগনেন্সির খবর নিয়ে পরিস্থিতি বিগড়ে যায়। আর তারপরে তারা দুজন বেডরুমে চলে যায়। সেখানেই সেক্সের চরম মুহূর্তে নিজের স্ত্রী’কে খুন করে মার্সেলো।