ঝালকাঠি নৌকাডুবিতে নিখোঁজ ৩ যাত্রীর লাশ উদ্ধার

ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে স্টিমারের ধাক্কায় ডুবে যাওয়া খেয়া পারাপারের ইঞ্জিনচালিত নৌকার তিন যাত্রীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার সকালে সুগন্ধা নদীর স্থানীয় কলেজ খেয়াঘাট এলাকা থেকে দুটি ও রাজাপুরের মানকি সুন্দর গ্রামের বিষখালী নদী থেকে একটি লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

যাদের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে তারা হলেন ঝালকাঠির পেনাবালিয়া গ্রামের রাজ্জাক মল্লিক রাজা (৩২) ও একই গ্রামের আলম জমাদ্দার (৩৫) এবং দেউরি গ্রামের তসলিম হাওলাদার (৫০)। গতকাল সোমবার স্থানীয়দের সহযোগিতায় ডুবুরিদল সুগন্ধা নদীর পোনাবালিয়া এলাকা থেকে ডুবে যাওয়া নৌকাটি উদ্ধার করে।

ঝালকাঠি থানার ওসি মো. মাহে আলম জানান, সকালে কলেজ খেয়াঘাট এলাকার সুগন্ধা নদীতে দুটি এবং রাজাপুর উপজেলার মানকি সুন্দর গ্রামের বিষখালী নদীতে একটি লাশ ভাসতে দেখে পুলিশে খবর দেয় স্থানীয়রা। পুলিশ গিয়ে নদী থেকে তিনজনের লাশ উদ্ধার করে। পরে স্বজনরা লাশ শনাক্তের পর ময়নাতদন্তের জন্য তা ঝালকাঠি সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়।

ঝালকাঠি ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন কর্মকর্তা গোলাম রসুল জানান, গত শুক্রবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে শহরের পৌর খেয়াঘাটসংলগ্ন সুগন্ধা নদীতে নৌকাডুবির ঘটনা ঘটে। প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানায়, সকালে ঘন কুয়াশার মধ্যে সদর উপজেলার পোনাবালিয়া ইউনিয়েনের রাজাপুর গ্রামের সুগন্ধা নদীর খেয়াঘাট থেকে চালকসহ ১১ জন যাত্রী নিয়ে খেয়াপারের নৌকাটি শুক্রবার সকালে শহরের পৌরসভা খেয়াঘাট আসছিল। এ সময় মাঝ নদীতে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা খুলনাগামী স্টিমার মধুমতির ধাক্কায় নৌকাটি ডুবে যায়। দুর্ঘটনার পর চালকসহ নৌকার আট যাত্রী স্থানীয় জেলেদের সহায়তায় তীরে উঠতে সক্ষম হলেও নিখোঁজ হন তিন যাত্রী।