যশোর-চট্টগ্রাম ফ্লাইটে বরিশাল’কে অন্তর্ভুক্তির দাবী

দেশের ৩টি প্রশাসনিক বিভাগ এবং বেনাপোল,পায়রা ও চট্টগ্রাম বন্দরসমুহকে সরাসরি আকাশ পথে সংযুক্তির লক্ষে প্রস্তাবিত যশোর চট্টগ্রাম ফ্লাইটে বরিশাল’কে অন্তর্ভুক্তির দাবী জানিয়েছেন দক্ষিণাঞ্চলের বাণিজ্য ও পেশাজীবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।বরিশাল প্রেসক্লাব ও বরিশাল চেম্বার সভাপতি সহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বাস্তবতার নিরিখে বিষয়টি বিবেচনারও তাগিদ দিয়েছেন।২৮ মার্চ থেকে প্রতি মঙ্গল ও বৃহস্পতিবার যশোর-চট্টগ্রাম রুটে এবং রবি ও বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম যশোর রুটে জাতীয় পতাকাবাহী বিমান যাত্রী পরিবহন করবে ।এ রুটে এক পথে ভাড়া নির্ধরন করা হয়েছে সব কর সহ ৪ হাজার ২শ টাকা ।

১৯৭৮ সাল থেকে প্রায় ’৯০ সাল পর্যন্ত যশোর-চট্টগ্রাম রুটে সপ্তাহে দুদিন আকাশ পরিসেবা চালু ছিল।পরবর্তীকালে সংশ্লিষ্টদের অনিহার কারণে যাত্রীবান্ধব এ আকাশ পরিসেবা বন্ধ হয়ে যায়।এরফলে সুদুর চট্টগ্রাম থেকে সমগ্র খুলনা বিভাগ ছাড়াও বেনাপোল ও ভোমড়া স্থল বন্দরের সহজ যোগাযেগটি বন্ধ হয়ে যায়।এমনকি চট্টগ্রামের যেসব ব্যবসায়ীগন বেনাপোল হয়ে ভারতের সাথে বিভিন্ন পণ্য অমদানী-রপ্তানী করছেন তাদের যথেষ্ঠ দূর্ভোগে ছিল বর্ণনাতীত।

এমনকি চট্টগ্রাম থেকে কোলকাতা সহ ভারতের বিভিন্নস্থানে যাতায়াকারী যত্রীদেরও সীমাহীন দূর্ভোগ সহ্য করে ১৮-২০ ঘন্টায় বেনাপোল যেতে হচ্ছে।এসব কিছু বিবেচনার পাশাপাশি বহরে নতুন উড়জাহাজ যূক্ত হওয়ায় সরকারী নির্দেশে ২৮ মার্চ থেকে যশোর চট্টগ্রাম রুটে জাতীয় পতাকাবাহী উড়জাহাজ চালু হচ্ছে।বরিশাল চেম্বারের সভাপতি সঈদুর রহমান রিন্টু সরকারী এ পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়ে প্রস্তাবিত এ ফ্লাইটটি যশোর-বরিশাল-চট্টগ্রাম রুটে পরিচালন-এর দাবী জানিয়েছেন।

বরিশাল প্রেসক্লাব সভাপতি মু. ইসমাইল হোসেন নেগাবান পায়রা সমুদ্র বন্দর ও কুয়াকাটা পর্যটন কেন্দ্র সহ সমগ্র দক্ষিণাঞ্চলকে চট্টগ্রাম ও খুলনা-যশোর-বেনাপোলের সাথে সংযূক্তির লক্ষে যশোর-চট্টগ্রাম ফ্লাইটটিতে বরিশালকে অন্তর্ভূক্তির দাবী জানিয়েছেন।এতেকরে দেশের ৩টি প্রশাসনিক বিভাগের মধ্যেও সরাসরি অকাশ পরিসেবা চালু হবে বলে উল্লেখ দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের পক্ষে আকাশ পথে যশোর হয়ে বেনাপোল ও কোলকাতায় যাতায়াতেরও সহজ পথ খুলে যবে বলে জনিয়েছেন প্রেসক্লাব সভাপতি।

বরিশালের সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব স ম হ দুলাল বাস্তবতা বিবেচনায় বরিশালেল সাথে চট্টগ্রাম ও যশোরের আকাশ পরিসেবা চালু করার দাবি জানিয়েছেন।তারমতে বরিশাল থেকে নৌপথে ঢাকা হয়ে সড়ক পথে চট্টগ্রাম পৌছতে প্রায় ২০ ঘন্টা সময় লাগে। আবার সড়ক পথে বেসাপোল যেতেও পায় ৮ ঘন্টা সময় লাগছে। সুতরাং সার্বিক বিবেচনায় দেশের এ দুটি স্থানের সাথে বরিশালের অকাশ পরিসেবা চালু করা জরুরী বলেও মনে করেন তিনি।